Education

ভরা পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল? এবং খাওয়ার আগে স্বাভাবিক মাত্রা কতো?

ডায়াবেটিস রোগে ভূগছেন? ডায়াবেটিস রোগঃ সুগারের মাত্রা কত হলে বুঝবেন ডায়াবেটিস হয়েছে? ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল? মাত্রা পরিমাপ করার উপায়। খালি পেটে কিংবা ভরা পেটে ডায়াবেটিসের মাত্রা কত? এসকল বিষয়ে প্রাথমিক ধারণা থাকলে, নিজেকে নিয়ন্ত্রন রাখতে এবং প্রয়োজনে ডাক্তারের শরনাপন্ন হতে সহায়ক হবে।

    সাধারণত, বিভিন্ন অবস্থায় শরীরে ডায়াবেটিসের প্রভাব বিবিধরুপে অসস্থি দিতে পারে। সেজন্য আপনার জানা থাকা উচিত, খালি পেটে কিংবা খাওয়ার পর অথবা ভরা পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল হিসেবে বিবেচ্য। এবং ডায়াবেটিস কমানোর সহজ উপায় কি কি, সে বিষয়েও নিচে যথাসম্ভব বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

    ডায়াবেটিস কি?

    ডায়াবেটিস কি? ডায়াবেটিস হলো হরমোন সংশ্লিষ্ট ব্যধি। এ রোগটিকে অনেকেই “বহুমূত্র” রোগ হিসেবে আখ্যায়িত করেছে। মানব দেহের শরীরের রক্তে যখন শর্করা এবং চিনি বা সুগারের উপাদানের তারতম্য দেখা যায়, তখন সাধারণত ডায়াবেটিস রোগের লক্ষণ ধারণা করা হয়। যদিও অনেকের মতে, এটি একটি বংশ-পরম্পরা রোগ।

    ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল

    ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল খাওয়ার আগে বা ভরা পেটে
    খাওয়ার আগে বা ভরা পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল?

    অনেকের কাছে, ডায়াবেটিসের মাত্রা পরীক্ষা করাটা ঝামেলার মনে হয়। কারণ, ডায়াবেটিস পরীক্ষা করার জন্য সকালে রক্তের নমুনা দিতে হলে, নিম্নত আট ঘন্টা না খেয়ে থাকতে হয়। এবং পরপর দুইবার রক্ত দিতে হয়। যার মাঝসময়ে অন্তত দুই ঘন্টা বিশ্রাম নিতে হতে পারে।

    সেজন্য, আপনার যদি ডায়াবেটিস নরমালের মাত্রা জানা থাকে। তাহলে হয়তবা আপনি উপকৃত হবেন; আমেরিকান ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন সংস্থা’র তথ্যমতে- সাধারণত এইচবিএ১সি’র মান 5.7 ’এর নিচে থাকলে, আপনার ডায়াবেটিকস নরমাল হিসেবে ধরা বিবেচনা করতে পারেন।

    কিভাবে লম্বা হওয়া যায় নারী পুরষ সকলের জন্য কার্যকরী সেরা ১০ টিপস

    কিভাবে লম্বা হওয়া যায়? নারী পুরষ সকলের জন্য কার্যকরী সেরা ১০ টিপস

    অদ্য আলোচনার বিষয় হলো: কিভাবে লম্বা হওয়া যায়? নারী-পুরুষ সকলের জন্য সহজ কিছু হেলথ টিপস নিয়ে লেখা কথা বলবো। আপনি যদি নিচের উপায় গুলো ব্যবহার করতে পারেন , তাহলে খুব দ্রুত লম্বা হওয়ার উপায় আয়ত্ত করতে পারবেন…

    অপরপক্ষে,
    যদি এইচবিএ১সি’র মান 6.5 ’এর বেশি হলেঃ ডায়াবেটিস আছে বলে বিবেচিত হবে। সুতরাং, ডায়াবেটিকস কত হলে নরমার? উত্তরঃ এইচবিএ১সি’র মান ৫.৭ থেকে ৬.৫ সীমারেখায় হলে, ডায়াবেটিকস এর লক্ষণমাত্রা হিসেবে সতর্ক হওয়া উচিত। এবং প্রয়োজনে নিকটস্থ ডাক্তারের পরামর্শে পদক্ষেপ নেওয়া ভালো।

    ডায়াবেটিস টেস্ট কত ধরণের?

    সুগারের মাত্রা কত হলে বুঝবেন ডায়াবেটিস হয়েছে - ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল - মাত্রা পরিমাপ করার উপায়
    সুগারের মাত্রা কত হলে বুঝবেন ডায়াবেটিস হয়েছে / ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল / মাত্রা পরিমাপ করার উপায়।
    • সাধারণত ৪ ধরনের ডায়াবেটিস টেস্ট হয়ঃ

    ১) FBS : fasting blood sugar : ৮-১০ ঘন্টা খালি পেটে এই টেস্টটি করতে হয়। সকালের খালি পেট; এই টেস্টের জন্য সবচেয়ে বেশি উপযুক্ত।
    ২। 2hrs ABF: 2hrs After breakfast : নাস্তা খাওয়ার ২ ঘন্টা পর এই টেস্ট করতে হয়।

    ৩। 2hrs 50/75g Glucose: এই টেস্টটি নাস্তা না খেয়ে গ্লুকোজ খেয়ে ২ ঘন্টা পর করতে হয়। অনেকে ১ ঘন্টা পরও একবার রক্ত দিয়ে থাকেন। আবার ২ ঘন্টা পরও দেন। মোট ৩ বার দিয়ে থাকেন।
    ৪। RBS: Random Blood Sugar: ডায়াবেটিস এর এই টেস্ট টি নাস্তা খাওয়ার ২ ঘন্টা পর করতে হয়।

    • বোনাসঃ
      ৫। HBA1C : এই টেস্টটি হলো ডায়াবেটিস এর ৩ মাসের গড় চেক করার জন্য করা হয়।

    ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল

    ডায়াবেটিস নির্ণয়ের পরীক্ষা - ডায়াবেটিসের লক্ষণ কি কি? ডায়াবেটিসে ব্লাড সুগার কত হলে নরমাল?
    ডায়াবেটিস নির্ণয়ের পরীক্ষা – ডায়াবেটিসের লক্ষণ কি কি? ডায়াবেটিসে ব্লাড সুগার কত হলে নরমাল?

    ডায়াবেটিস কত পয়েন্ট হলে নরমাল? উত্তরঃ সাধারণত 140 mg/dL (7.8 mmol/L) এর চেয়ে কম রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক হিসেবে বিবেচ্য। দুই ঘন্টা পর 200 mg/dL (11.1 mmol/L) এর বেশি রিডিং ডায়াবেটিস নির্দেশ করে। 140 এবং 199 mg/dL (7.8 mmol/L এবং 11.0 mmol/L) এর মধ্যে একটি রিডিং – ডায়াবেটিকস এর পূর্ব লক্ষণ নির্দেশ করে

    বাচ্চাদের ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল

    অনেকেই হয়তো জানে না: শিশুদেরও ডায়াবেটিকস ব্যধী হয়। এদের রোগের ধরণ ভিন্ন। অর্থাৎ, বাচ্চাদের সাধারণত টাইপ-১ ডায়াবেটিকস হয়। ৫ – ১১ বছর বয়সী শিশুদের জন্য, স্বাভাবিক রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা 70 থেকে 150mg/dL। উপবাসের রক্তে শর্করা স্বাভাবিক চিনির মাত্রার নিম্ন প্রান্তের কাছাকাছি হতে হবে। খাবারের পরে এবং শোবার আগে রক্তে শর্করা উপরের প্রান্তের কাছাকাছি হওয়া উচিত। রাতের বেলায় 120mg/dL এর নিচে গ্লুকোজের মাত্রা চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন।

    খালি পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল

    খালি পেটে একজন ব্যক্তির ডায়াবেটিকস রিডিং সাধারণত ১০০ -এর নিচে হয়ে থাকে। এবং ডায়াবেটিকস রোগের প্রাথমিক লক্ষ্য হলো: খালি পেটে ৭০ থেকে ১৩০ রিডিং এর মধ্যে পড়া।

    খাওয়ার পর ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল

    ডায়াবেটিসবিহীন একজন ব্যক্তির রিডিং সাধারণত খালি পেটে ১০০ এর নিচে এবং খাওয়ার দুই ঘন্টা পরে ১৪০ এর নিচে থাকে। আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশনের মতে, ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য প্রাথমিক লক্ষ্য হল খালি পেটে ৭০ থেকে ১৩০ এর মধ্যে পড়া এবং খাবার শুরু করার দুই ঘন্টা পরে ১৮০ এর কম।

    ভরা পেটে ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল

    ভরা পেটে নরমাল ডায়াবেটিকস এর লক্ষণ: সাধারণত খাবারের পরে ভরা পেটে দেহের রক্তে সুগার (চিনি উপাদান) ‘র মাত্রা সামান্য বেড়ে যাওয়াটা অস্বাভাবিকের কিছু নয়। কিন্তু এই সুগারের মাত্রা যদি ৭.৮ পয়েন্ট ( mmol/l ) ‘এর থেকে বেশি পরিমাণে বেড়ে যায় তাহলে এটাকে প্রি-ডায়াবেটিস বা ডায়াবেটিকসের পূর্ব লক্ষণ বলা যায়। এবং ১১.১১ পয়েন্টের চাইতে অধিক হলে, তখন ডায়াবেটিসের যথাযুক্ত মাত্রায় চলে যায়।

    ডায়াবেটিস কত হলে বেশি

    আমেরিকান ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশনের নির্দেশনা অনুযায়ী, HBA1C এর মান 5.6 এর কম হলে স্বাভাবিক বলে মনে করা হয়। কিন্তু যদি এটি 7.5 এর বেশি হয় তবে এটি ডায়াবেটিক হিসাবে বিবেচিত হয়। এই মান 5.6 এবং 7.5 এর মধ্যে হলে প্রি-ডায়াবেটিস বা প্রাক-ডায়াবেটিস বলা উচিত।

    ডায়াবেটিস কত হলে বিপদ

    The University of Michigan এর মতে, ডায়াবেটিকস এর মাত্রা 300 mg/dL-এর উপরে হলে বিপজ্জনক হতে পারে। আপনার যদি পরপর 300 mg/dL এর দুই বা তার বেশি মাতায় / রিডিং থাকে তাহলে অবিলম্বে আপনার বিশ্বস্থ ডাক্তারকে জানানোর পরামর্শ রইলো।

    ডায়াবেটিস মাপার সঠিক সময়

    ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞদের মতান্তরে, খাদ্যদ্রব্য গ্রহণের প্রায় দুই ঘন্টা (02 hours) পর, ডায়াবেটিস টেস্ট করানো বা মাপা উচিত। অনেকেই আছেন, যারা নিয়মিত ডায়াবেটিকস টেস্ট করাতে ভুলে যান। অথবা অবহেলা করে থাকেন, তাদের জন্য সতর্কতামূলকভাবে বলছিঃ নিয়ম মেনে টেস্ট না করালে, আপনি হয়তবা সঠিকভাবে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন না। সুতরাং, নিয়মিত টেস্ট করালেই ভালো।

    FAQ: ডায়াবেটিস সংক্রান্ত আরও কিছু প্রশ্নঃ-

    ডায়াবেটিস কমানোর উপায়

    কমানোর সহজ উপায়

    সাধারণ উপায়ে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবং প্রাকৃতিকভাবে ডায়াবেটিকস কমানোর জন্যঃ চিনি, যেকোন মিষ্টি জাতীয় খাদ্য-দ্রব্য বা কার্বোহাইড্রেট, এবং শষ্যজাতীয় খাবার যথাসম্ভব পরিহার করা উচিত। এবং প্রাত্যহিক ক্যালোরির চাহিদানুসারে প্রোটিন এবং চর্বি জাতীয় খাদ্য গ্রহন করবেন। এছাড়াও, ভিটামিন এবং খনিজ উপাদানের চাহিদা পূরণ করতে – প্রাত্যহিক খাদ্য-দ্রব্যের সাথে- আপনি সবজি খেতে পারেন।

    ডায়াবেটিস কত হলে ওষুধ খেতে হবে

    নির্ণয়ের পরীক্ষা

    ডায়াবেটিকসের লক্ষ্য মাত্রার মধ্যে, (যেমন> 7.5 থেকে 8 শতাংশ) A1C সহ উপস্থিত বেশিরভাগ রোগীদের জন্য, টাইপ-২ ডায়াবেটিস নির্ণয়ের সময় (জীবনধারা পরিবর্তনের সাথে সাথে ) সবজি, প্রোটিন এবং চর্বিজাতীয় খাদ্যগ্রহণের পাশাপাশি ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ফার্মাকোলজিক থেরাপি বা ওষুধ খেতে হবে।

    যাহোক,
    উপরোক্ত আলোচনা থেকে: ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেলাম। অর্থাৎ, এইচবিএ১সি’র মান ৫.৭ থেকে ৬.৫ সীমারেখায় হলে, ডায়াবেটিকস এর লক্ষণমাত্রা দেখা দেয়। তবে, HBA1C ‘এর মাত্রা / রিডিং 5.7 এর নিচে হলে, মানবদেশে ডায়াবেটিসের পরিমাণ নরমাল।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Back to top button