Other

গাড়ির প্রয়োজনীয় তেল – গাড়ির যত্নে ৬ টি টিপস

প্রতিটি গাড়ির ইঞ্জিনের হুডের নীচে আমরা কয়েকটি ছোট ট্যাঙ্ক দেখতে পাই। সেখানে কি কি অয়েল বা তরল পদার্থ থাকে? এর মধ্যে কয়েকটি নিয়মিত পরীক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ। কিছু জিনিস আছে যেগুলো প্রতিদিন চেক না করলেও সপ্তাহে অন্তত একবার চেক করা দরকার।

  • Engine Oil
  • Break oil
  • Gear oil
  • Power steering oil
  • Coolant water or radiowater
  • Washer water or rain wiper fluid

“মনে রাখবেন,সময়ের চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি”

গাড়ির উক্তি

তাই
“সাবধানে গাড়ি চালাবেন, ট্রাফিক আইন মেনে চলবেন। আপনি এবং সকলে ভালো থাকবেন”

৪২১ টি ইংরেজি কনফিউজিং শব্দ

ইঞ্জিন অয়েল কি?

সহজ কথায়, আমরা সবাই জানি যে প্রতিটি ইঞ্জিনের ভিতরে কিছু জিনিস ক্রমাগত চলমান থাকে বা ঘষমান হতে থাকে, যেমন টাইমিং চেইন, ক্র্যাঙ্কশ্যাফ্ট, পিস্টন ইত্যাদি। এই ঘর্ষণগুলি দ্রুত এবং মসৃণ করতে ইঞ্জিনওয়েল ব্যবহার করা হয়। ইঞ্জিন তেলের কাজ হল এই চলমান পিস্টনের ঘর্ষণকে ত্বরান্বিত করা বা কমানো।

ইঞ্জিন অয়েলের ধরণ

  • সিন্থেটিক তেল ( Synthetic oil )
  • কৃত্রিম মিশ্রণ ( Synthetic blends)
  • উচ্চ মাইলেজ তেল ( High mileage oil )
  • প্রচলিত তেল ( Conventional oil )

ইঞ্জিনঅয়েলের গ্রেড কি?

SAE (সোসাইটি অফ অটোমোটিভ ইঞ্জিনিয়ার্স) ইঞ্জিন তেল এবং ট্রান্সমিশন তেলের ঘনত্বের উপর ভিত্তি করে তাদের গ্রেডের নামকরণ করেছে। সান্দ্রতা হল একটি তরলের অভ্যন্তরীণ ঘর্ষণ পরিমাণ। ঘরের তাপমাত্রায় বিভিন্ন ইঞ্জিন তেলের বিভিন্ন ঘনত্ব থাকে। তারা তাপমাত্রা পরিবর্তনের জন্য ভিন্নভাবে প্রতিক্রিয়া জানায়।

যেমনঃ- 0W, 5W, 10W, 15W, 20W, 25W, 20, 30, 40, 50, এবং 60। এখানে W বলতে বোঝায় ইঞ্জিন ওয়েল এর ওজন। সান্দ্রতা যত কম হবে তেল তত পাতলা হবে এবং সান্দ্রতা যত বেশি হবে তেল তত ঘন হবে। বর্তমানে আমাদের দেশের প্রায় সব গাড়িই 0W-20 এবং 5W-30 ব্যবহার করে কিন্তু আমাদের মাথায় রাখতে হবে কোন গাড়ির ইঞ্জিনের জন্য কোন গ্রেড প্রয়োজন। কোম্পানির কিছু তথ্য থাকলে আমরা অনুসরণ করি, ইঞ্জিন ভালো হবে।

    কিভাবে ইঞ্জিনঅয়েল চেক করতে হবে?

    সপ্তাহে অন্তত একবার ইঞ্জিনের তৈল পরীক্ষা ( চ্যাক ) করা দরকার।

    1. সকালে গাড়ি স্টার্ট করার আগে অর্থাৎ ইঞ্জিন ঠাণ্ডা হলে চেক করে নিতে হবে।
    2. ডিপস্টিকটি আলতো করে খুলতে হবে।
    3. সাদা টিস্যু পেপার দিয়ে মুছুন।
    4. ডিপস্টিক পুনরায় ঢোকান, কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন এবং আবার খুলুন।
    5. তারপর লক্ষ্য করুন যে ডিপস্টিকে উঁচু বা নিচু দাগ থাকবে। পাশের চিত্রটি লক্ষ্য করুন। কম হলে রিফিল করুন। যদি পরিমাণের স্বাভাবিক পরিসীমা থাকে তবে কিছু সময় পরে আবার পরীক্ষা করুন।
    6. আবার একটি সাদা টিস্যু দিয়ে ডিপস্টিক
      টিস্যু বেশি কালো দেখলে মুছে ফেলুন
      যদি আপনি এটি অনুভব করেন এবং আপনার আঙ্গুলের উপর রাখুন
      পানির মত পাতলা হয়ে গেলে।
      বুঝে নিন ইঞ্জিন বদলানোর সময় এসেছে।
    7. সতর্কীকরণ চিহ্নটি আসলে ইঞ্জিনটি ভালভাবে পরীক্ষা করা উচিত।

    সাধারণভাবে, আমাদের দেশের প্রায় সমস্ত মেকানিক্স ইঞ্জিন তেলকে 3000-3500 কিলোমিটারে পরিবর্তন করার পরামর্শ দেয়। ইঞ্জিন ভালো। তবে গাড়ি কোম্পানির সুপারিশকৃত তেল ব্যবহারে সতর্ক থাকুন।

    ব্রেক অয়েল

    ব্রেক অয়েল হল একটি রাসায়নিক যা আধুনিক যানবাহনের হাইড্রোলিক ব্রেকিং সিস্টেমে ব্যবহৃত হয়। এই ব্রেক প্যাডেলটি আপনার পায়ের চাপের শক্তি বাড়াতে এবং এটিকে আপনার গাড়ির ব্রেক চাপে পরিণত করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ব্রেক অয়েল ছাড়া আপনার গাড়ি থামাতে আপনার পায়ে অনেক চাপ পড়বে।

    গাড়ির প্রয়োজনীয় তেল - গাড়ির যত্নে ৬ টি টিপস
    গাড়ির প্রয়োজনীয় তেল – গাড়ির যত্নে ৬ টি টিপস

    ব্রেক অয়েল ট্যাংক

    সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন দাগ আছে। এতে আপনাকে প্রয়োজনীয় তরল দিতে হবে। তিন ধরনের ব্রেক ফ্লুইড পাওয়া যায়: DOT3, DOT4 এবং DOT5। DOT3 এবং DOT4 হল গ্লাইকল-ভিত্তিক তরল, DOT5 হল DOT3 এবং DOT4 হল সিলিকন-ভিত্তিক। প্রধান পার্থক্য হল এটি জল শোষণ করে, যেখানে DOT5 শোষণ করে না। ব্রেক ফ্লুইডের একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হল এর স্ফুটনাঙ্ক। যাইহোক, আমাদের এটি নিয়ে খুব বেশি গবেষণা করার দরকার নেই।

    গিয়ার অয়েল

    গিয়ার অয়েল আপনার ট্রান্সমিশনকে মসৃণভাবে চালাতে সাহায্য করে। আরও গুরুত্বপূর্ণ, এটি আপনার গাড়ির গিয়ার সিস্টেমের গুরুত্বপূর্ণ উপাদানগুলিকে তাপের ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে তবে, এটি গিয়ার তেলের সুবিধা এবং অসুবিধার উপর ভিত্তি করে কমবেশি হতে পারে।

    যেসকল গাড়িতে ডিপস্টিক আছে, সেসব গাড়ির গিয়ার অয়েল চেক করবেন কিভাবে?
    1. ইঞ্জিন হুড খুলুন এবং ডিপস্টিকটি লক্ষ্য করুন (ঠিক ইঞ্জিন তেলের ডিপস্টিকের মতো)।
      তবে আধুনিক গাড়িতে বর্তমানে ডিপস্টিক নেই। এই ক্ষেত্রে, আপনাকে একটি কম্পিউটার চেকআপের মাধ্যমে পরীক্ষা করতে হবে।
    2. ডিপস্টিকটি আলতো করে খুলতে হবে।
    3. সাদা টিস্যু পেপার দিয়ে মুছুন।
    4. ডিপস্টিক পুনরায় ঢোকান, কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন এবং আবার খুলুন।
    5. তারপর লক্ষ্য করুন যে ডিপস্টিকে উঁচু বা নিচু দাগ থাকবে। পাশের চিত্রটি লক্ষ্য করুন। যদি কম হয় তবে পরিমাণ অনুযায়ী রিফিল করুন এবং যদি এটি স্বাভাবিক পরিসীমা হয় তবে কিছু সময় পরে আবার পরীক্ষা করুন।

    WASHER FLUID/ওয়াইপার ট্যাংক

    এতে মূলত পানি থাকে যা আপনার গাড়ির উইন্ডশীল্ড পরিষ্কার করতে ব্যবহৃত হয়। এখানে অনেকেই শ্যাম্পু বা সাবান পানি ব্যবহার করেন। এটি উইন্ডশীল্ড কভার ধ্বংস করবে। উইন্ডশীল্ড পরিষ্কার করার জন্য বর্তমানে কিছু ট্যাবলেট উপলব্ধ রয়েছে যা আপনার গাড়ির উইন্ডশীল্ড কভারকে সুন্দর এবং পরিষ্কার রাখে।

    POWER STEERING ( পাওয়ার স্টিয়ারিং অয়েল )

    পাওয়ার স্টিয়ারিং অয়েল হল একটি হাইড্রোলিক তরল যা স্টিয়ারিং হুইল এবং স্টিয়ারিং সিস্টেমের সামনের চাকার মধ্যে একটি হাইড্রোলিক লিঙ্ক তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। এটি চাকা ঘুরানোর জন্য প্রয়োজনীয় প্রচেষ্টার পরিমাণ হ্রাস করে। পাওয়ার স্টিয়ারিং ফ্লুইড স্টিয়ারিং সিস্টেমের চলমান অংশগুলিকে লুব্রিকেট করে তাই আপনাকে অতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগ করতে হবে না। আপনি যেভাবে ব্রেক অয়েল চেক করেন সে সম্পর্কেও একই কথা বলা যেতে পারে।

    বর্তমান গাড়ির ইলেকট্রনিক পাওয়ার স্টিয়ারিং অবশ্য কোনো তরল ব্যবহার করে না, তাই কোনো ট্যাঙ্ক নেই এবং কোনো রক্ষণাবেক্ষণও নেই। সম্পূর্ণ ইলেকট্রনিক সিস্টেম থাকলে কোন সমস্যা নেই।

    RADIATOR FLUID বা রেডিয়েটর তরল কি?

    রেডিয়েটর তরল, যা এক ধরনের কুল্যান্ট বা অ্যান্টিফ্রিজ নামেও পরিচিত, আপনার রেডিয়েটরকে ঠান্ডা রাখে এবং আপনার গাড়ির ইঞ্জিনকে ঠান্ডা রাখে। গাড়ির ইঞ্জিন চলার সময় খুব গরম হয়ে যায়, বিশেষ করে গরম আবহাওয়ায়।

    যদি কোনো কারণে আপনার গাড়ির রেডিয়েটারের তরল ফুরিয়ে যায়, তাহলে ইঞ্জিন আঘাত করবে এবং এমনকি মারাত্মক ক্ষতিও করবে।

    রেডিয়েটর তরল চেক

    এটি প্রতি 2-3 দিন পর পর পরীক্ষা করা উচিত। তবে ইঞ্জিন ঠান্ডা হলে বা সকালে গাড়ি স্টার্ট করার আগে দেখে নিন। গরম থাকা অবস্থায় কখনই ইঞ্জিন চেক করবেন না কারণ এতে গরম পানি ছড়িয়ে পড়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

    তাই সকালে গাড়ি স্টার্ট করার আগে চেক করে নিন এবং প্রয়োজনমতো রিফিল করুন। অনেকে এখানে কুল্যান্ট ওয়াটার ব্যবহার করেন তবে আপনি চাইলে মিনারেল ওয়াটারও ব্যবহার করতে পারেন। চেক করার সময়, রিজার্ভ ট্যাঙ্ক দিয়ে চেক করুন। ধন্যবাদ ।।

    Related Articles

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    Back to top button