General Knowledge

ইউরোপের দেশ কয়টি ? সেনজেন ও নন-সেনজেন ভুক্ত দেশের তালিকা

ইতিহাস ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির জন্য উনবিংশ শতাব্দী থেকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বিখ্যাত। ইউরোপের দেশ কয়টি ও কি কি,  তা নিয়ে থাকছে আজকের আর্টিকেলের আয়োজন। সেই সাথে ইউরোপের সেনজেন ও নন-সেনজেন ভুক্ত দেশের তালিকা জানতে, সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন। 

ইউরোপের দেশ কয়টি ও কি কি?

ইউরোপ কান্ট্রি তে সর্বমোট ৫০টি রাষ্ট্র রয়েছে।  তার মধ্যে কতগুলো সেনজেন সংস্থার আওতাভুক্ত,  এবং কয়েকটি দেশ নন-সেনজেন এর অন্তর্ভুক্ত কান্ট্রি।

এক নজরে ইউরোপিয়ান 50 টি দেশের তালিকা

  1. আলবেনিয়া
  2. এন্ডোরা
  3. আর্মেনিয়া
  4. অস্ট্রিয়া
  5. আজারবাইজান
  6. বেলারুশ
  7. বেলজিয়াম
  8. বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা
  9. বুলগেরিয়া
  10. ক্রোয়েশিয়া
  11. সাইপ্রাস
  12. চেক প্রজাতন্ত্র
  13. ডেনমার্ক
  14. এস্তোনিয়া
  15. ফিনল্যান্ড
  16. ফ্রান্স
  17. জর্জিয়া
  18. জার্মানি
  19. গ্রীস
  20. হাঙ্গেরি
  21. আইসল্যান্ড
  22. আয়ারল্যান্ড
  23. ইতালি
  24. কাজাখস্তান
  25. কসোভো
  26. লাটভিয়া
  27. লিচেনস্টাইন
  28. লিথুয়ানিয়া
  29. লুক্সেমবার্গ
  30. মাল্টা
  31. মলদোভা
  32. মোনাকো
  33. মন্টিনিগ্রো
  34. নেদারল্যান্ডস
  35. উত্তর মেসিডোনিয়া (পূর্বে মেসিডোনিয়া)
  36. নরওয়ে
  37. পোল্যান্ড
  38. পর্তুগাল
  39. রোমানিয়া
  40. রাশিয়া
  41. সান মারিনো
  42. সার্বিয়া
  43. স্লোভাকিয়া
  44. স্লোভেনিয়া
  45. স্পেন
  46. সুইডেন
  47. সুইজারল্যান্ড
  48. তুরস্ক
  49. ইউক্রেন
  50. যুক্তরাজ্য (ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, ওয়েলস এবং উত্তর আয়ারল্যান্ড অন্তর্ভুক্ত)

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন যে তালিকায় স্বীকৃত সার্বভৌম রাষ্ট্র এবং নির্ভরশীল অঞ্চল অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

ইউরোপের সেনজেন ভুক্ত দেশের তালিকা

ইউরোপের সেনজেন এলাকা এমন  কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ নিয়ে গঠিত,  যারা অভ্যন্তরীণ এরিয়া বা সীমানা ভুলে গিয়ে পরস্পর প্রত্যেকের দেশে নির্ভীক নিয়ে ভ্রমণের অনুমতি প্রদান করে থাকে।  অর্থাৎ আপনি এই সেনজেনের আওতাভুক্ত যে কোন একটি দেশের ভিসা নিয়ে প্রত্যেকটি কান্ট্রিতে নির্দ্বিধায় ভ্রমণ করতে পারবেন। এবং স্থানীয় নাগরিকদের মত স্বাস্থ্য চিকিৎসা,  আশ্রয় নিরাপত্তা,  এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দিয়ে পাবেন।

সেনজেন ও নন সেনজেন ভুক্ত দেশের তালিকাসহ ইউরোপের দেশ কয়টি
সেনজেন ও নন সেনজেন ভুক্ত দেশের তালিকাসহ ইউরোপের দেশ কয়টি

এখানে শেনজেন দেশগুলির একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা হলোঃ অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, চেক প্রজাতন্ত্র, ডেনমার্ক, এস্তোনিয়া, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, গ্রীস, হাঙ্গেরি, আইসল্যান্ড, ইতালি, লাটভিয়া, লিচেনস্টাইন, লিথুয়ানিয়া, লুক্সেমবার্গ, মাল্টা, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া, স্পেন, সুইডেন এবং সুইজারল্যান্ড।

আরও পড়ুন ;  Internet এবং ICT সম্পর্কিত ৩০ টি শব্দের পূর্ণরূপ

দুইটি দেশের মধ্যবর্তী সীমান্ত এলাকায় কোন রকমের বাধা-বিপত্তির সম্মুখীন না হয়ে এক বা একাধিক সেনজেনের আওতাভুক্ত এই ইউরোপীয় দেশগুলোতে স্বাধীনভাবে আপনি যে কোন মৌসুমে ভিজিট করতে পারবেন।  আশা করি, আপনার এক অসাধারণ ভ্রমণ অভিজ্ঞতা অর্জন হবে।

ইউরোপের নন সেনজেন ভুক্ত দেশের তালিকা

যদিও ইউরোপিয়ান সেনজেন দেশগুলো তাদের প্রত্যেক  দেশের নাগরিকদেরকে নির্ভীঘ্নে যেকোনো সময় ভ্রমণ করার অনুমতি প্রদান করেছে।  সেখানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত বেশ কয়েকটি nonsenzen ভুক্ত দেশ রয়েছে;  যারা তাদের নিজস্ব রাষ্ট্রীয় ভৌগোলিক সীমান্ত এলাকায় একদম প্রিয় নীতিমালা বজায় রেখেছে।

এখানে ইউরোপের নন-শেঞ্জেন ( নন-সেনজেন ভুক্ত ) দেশগুলির একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা দেখুনঃ আলবেনিয়া, অ্যান্ডোরা, আর্মেনিয়া, বেলারুশ, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, বুলগেরিয়া, ক্রোয়েশিয়া, সাইপ্রাস, জর্জিয়া, আয়ারল্যান্ড, কসোভো, মলদোভা, মোনাকো, মন্টিনিগ্রো, উত্তর মেসিডোনিয়া, রোমানিয়া, রাশিয়া, সান মারিনো, সার্বিয়া, তুরস্ক, ইউক্রেন এবং যুক্তরাজ্য (ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, ওয়েলস এবং উত্তর আয়ারল্যান্ড সহ)। 

মূলত ইউরোপিয়ান অঞ্চলের এই দেশগুলো তাদের স্বতন্ত্র সীমানা অতিক্রমের নিয়ম নীতির বজায় রেখে রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ স্বার্থ রক্ষা করছে।  যদি আপনি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের এই নন সেনজেন ভুক্ত দেশগুলোর কোন একটিতে ভ্রমণ করতে চান, তাহলে প্রত্যেকটি দেশেই আলাদাভাবে আপনাকে পাসপোর্ট দেখাতে হবে।  নয়তোবা আইনগত সমস্যায় পড়তে পারেন।

উল্লেখিত ইউরোপের দেশ কয়টি ও কি কি সম্পর্কিত দেশের তালিকা গুলো অনলাইনের বিভিন্ন পোর্টাল থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। তথ্যের ভুল ত্রুটি ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখবেন। ধন্যবাদ।

Related Articles

Leave a Reply