স্বাস্থ্য টিপস

ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায়, এর থেকে মুক্তির উপায় কি?

আজকে আমি আপনাকে জানাবো, ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায়, ডায়াবেটিস থেকে মুক্তির উপায় আর বি এস নরমাল কত, ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল, ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়,  কি কি খাওয়া যাবে না, এবং এর থেকে থেকে বাঁচার উপায় নিয়ে।

ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যার ফলে, অগ্নাশয়ে ইনসুলিনের উৎপাদন সঠিকভাবে হয় না বা শরীর ইনসুলিন ঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারে না। এটি রক্তে শর্করার মাত্রা বা গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি করে।  যা শরীরের বিপাকের প্রাথমিক কাজকে বিরূপভাবে প্রভাবিত করে, ফলে আমাদের শরীর বিভিন্ন জটিলতার সম্মুখীন হয়। 

ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায়?

ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায়
ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায়?

ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায় এর সুনির্দিষ্ট কোন মাত্রা নেই। তবে ডায়াবেটিসে পরিমাণ বেড়ে গেলে অবশ্যই রোগীর অনেক সমস্যা দেখা দেয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে –

  • ডায়াবেটিসের ফলে অন্ধত্ব, কিডনি ফেইলিওর, হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক এবং অঙ্গবিচ্ছেদের কারণ হতে পারে।
  • ২০০০ এবং ২০১৯ এর মধ্যে, বয়স অনুসারে ডায়াবেটিস মৃত্যুর হার ৩% বৃদ্ধি পেয়েছে।
  • ২০১৯ সালে, ডায়াবেটিসের কারণে ডায়াবেটিস এবং কিডনি রোগের কারণে আনুমানিক ২ মিলিয়ন মানুষ মারা গেছে।
  • জটিলতার জন্য চিকিৎসা, সঠিক খাদ্য তালিকা, নিয়মিত ব্যায়াম, শরীরের স্বাভাবিক ওজন বজায় রেখে, এবং ধূমপান বা মদ্যপান এড়িয়ে টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা সম্ভব।

যদি আপনার ডায়াবেটিস হয়ে থাকে তাহলে বুঝা যাবে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা, খাওয়ার পূর্বে  ৪.৬ – ৬.৪ মিমি / লি এবং খাওয়ার দুই ঘন্টা পর  ৭.৮ – ১১ মিমি / লি  এবং হিমোগ্লোবিন A1 C ৭% এর নিচে।

ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায় সেটা নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যায় না। তবে ডায়াবেটিস এর মাত্রা বেড়ে গেলে মানুষের স্ট্রোক, হার্ট এর সমস্যা, কিডনি সমস্যা, হয়ে মারা যায়।

ডায়াবেটিক কেটো অ্যাসিডোসিস ডায়াবেটিসের একটি প্রধান জটিলতা। ডায়াবেটিক কেটোসিডোসিস ঘটে যখন আপনার শরীর পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি করতে পারে না। এ ক্ষেত্রে রোগীর রক্তে হঠাৎ করে চিনির মাত্রা বেড়ে যায়, কিটো অ্যাসিড নামে এক ধরনের অ্যাসিড অতিরিক্ত পরিমাণে তৈরি হয়। 

ইনসুলিন হরমোনের কাজ হল চিনি (গ্লুকোজ) ভেঙে শক্তি উৎপাদন করা। কোনো কারণে শরীর পর্যাপ্ত ইনসুলিন তৈরি করতে না পারলে বিকল্প উপায়ে চর্বি ভেঙে শক্তি জোগাতে চেষ্টা করে। কিটো অ্যাসিড এই প্রক্রিয়ায় একটি উপজাত হিসাবে উত্পাদিত হয়। যখন খুব বেশি কিটো অ্যাসিড তৈরি হয়, তখন শরীর হঠাৎ প্রতিক্রিয়া করে। এটি ডায়াবেটিক কেটোঅ্যাসিডোসিস।

এটি একটি জরুরি অবস্থা, যাতে মৃত্যুঝুঁকি’ও থাকে। ডায়াবেটিক কেটো-অ্যাসিডোসিস অবস্থা হলে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পূর্বেই আপনি কোমায় পড়ে মারা যাবেন।

আর বি এস (Random Blood Sugar) নরমাল কত

আর বি এস (Random Blood Sugar) নরমাল  ৮০ – ১৪০ mg/dl

ডায়াবেটিস কত হলে নরমাল

  • খালিপেটে 99 mg/dL অথবা 5.6mmol/L কম থাকলে
  • খবার ২ ঘন্টা পর 140 mg/dL অথবা 7.8 mmol/L কম থাকলে
  • RANDOM 80–140 mg/dL অথবা 4.4 -7.8 mmol/L কম থাকলে
  • হিমোগ্লোবিন A1C 5.7% এর কম

ডায়াবেটিস হলে কি কি সমস্যা হয়

ডায়াবেটিসের সবচেয়ে সাধারণ জটিলতা হল কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ। ডায়াবেটিস রোগীদের হৃদরোগ এবং স্ট্রোক হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে কারণ উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রা রক্তনালী এবং স্নায়ুকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। এই ক্ষতি হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক এবং অন্যান্য গুরুতর সমস্যাগুলির ঝুঁকি বাড়ায়। 

ডায়াবেটিস পা ও পায়ের রক্তনালীগুলিরও ক্ষতির কারণ। উপরন্তু, ডায়াবেটিস কিডনির ক্ষতি করতে পারে, যা কিডনি ফেইলিওর এর দিকে নিয়ে যায় এবং এটি চোখের ক্ষতি করে, এটা হলে অন্ধত্ব পর্যন্ত হতে পারে।

আরও পড়ুন ;  ১৬ টি ডায়াবেটিস এর লক্ষণ। প্রতিরোধ করার উপায় কি জানুন

ডায়াবেটিসের অন্যান্য জটিলতাগুলির মধ্যে রয়েছে:

  • নিউরোপ্যাথি (স্নায়ু ক্ষতি)
  • নেফ্রোপ্যাথি (কিডনির ক্ষতি)
  • রেটিনোপ্যাথি (চোঁখের ক্ষতি)
  • পায়ের ক্ষতি এবং অঙ্গচ্ছেদ
  • ত্বকের জটিলতা
  • মাড়ির রোগ

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে সঠিক ডায়াবেটিস ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এই জটিলতাগুলি প্রতিরোধ করা যেতে পারে। যার মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্যকর খাওয়া, নিয়মিত শারীরিক কার্যকলাপ এবং রক্তে শর্করার মাত্রা পর্যবেক্ষণ।

ডায়াবেটিস হলে কি কি খাওয়া যাবে না

আপনি যদি একজন ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগী হয়ে থাকেন তবে খাদ্যাভাস সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত। আপনাকে সুষম এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। যাতে কম স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট, যুক্ত শর্করা এবং সোডিয়াম থাকে। ডায়াবেটিকস থাকলে এমন কিছু খাবার রয়েছে যারা কম পরিমাণে বা না খাওয়াই ভালো।

জেনে নেয়া যাক ডায়াবেটিস হলে কি কি খাওয়া যাবে না:

  • যেসব খাবারে শর্করা বেশি থাকে, যেমন ক্যান্ডি, পেস্ট্রি এবং চিনিযুক্ত পানীয়।
  • যেসব খাবারে স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট বেশি, যেমন ভাজা খাবার, প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং হাইড্রোজেনেটেড তেল আছে এমন খাবার।
  • যেসব খাবারে সোডিয়াম বেশি, যেমন প্রক্রিয়াজাত খাবার, টিনজাত স্যুপ এবং সবজি এবং ডেলি মিট।
  • সাদা রুটি, পাস্তা এবং সাদা ভাত
  • প্রক্রিয়াজাত খাবার, কারণ তারা প্রায়ই উচ্চ ক্যালোরি, যোগ শর্করা, এবং অস্বাস্থ্যকর চর্বি।

এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে প্রত্যেকের খাদ্যতালিকাগত চাহিদা ভিন্ন।  তাই ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তিদের তাদের জন্য সঠিক খাবার পরিকল্পনা করার জন্য একজন ডায়েটিশিয়ানের বা ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ সাথে যোগাযোগ করা উচিত। 

আরো পড়ুনঃ ডায়াবেটিস রোগীর খাদ্য তালিকা। কি খেলে ডায়াবেটিস হবে না

ডায়াবেটিস রোগীর খাবার তালিকা

ডায়াবেটিস রোগীর অবশ্যই ক্যালরির  হিসেব রাখতে হবে।  ডায়াবেটিস রোগীর জন্য মোট ক্যালরির:

  • ২০% আমিষ থেকে 
  • ৩০% ফ্যাট থেকে এবং 
  • ৫০%  শর্করা থেকে।

এই হিসাব মাথায় রেখে ডায়াবেটিস রোগীর খাবার তালিকা তৈরি করতে হবে

  • লাল চালের ভাত  
  • গমের আটার রুটি
  • সবজি
  • বাদাম
  • বুট এবং 
  • কলাই জাতীয় খাদ্য 

রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা ধীরে ধীরে বাড়ায়। তাই এই খাবারগুলো খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে।

ডায়াবেটিস কত হলে বিপদ এবং মাত্রা কত হলে ইনসুলিন নিতে হবে?

ডায়াবেটিস থেকে বাঁচার উপায়

জীবনযাত্রা বেশ কিছু পরিবর্তন করে ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি থেকে বাঁচতে পারেন। এর মধ্যে রয়েছে:

  • স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া: স্যাচুরেটেড এবং ট্রান্স ফ্যাট, যুক্ত শর্করা এবং সোডিয়াম কম এবং ফল, শাকসবজি এবং গোটা শস্য বেশি থাকে এমন খাবার খাওয়া ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারে।
  • স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা: অতিরিক্ত ওজন বা মোটা হওয়া ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়ায়। নিয়মিত ব্যায়াম এবং স্বাস্থ্যকর খাবারের মাধ্যমে ওজন কমানো।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করা: নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম ইনসুলিন এর কার্যকারিতা বাড়ায় এবং পেশী শক্তি বাড়িয়ে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

ডায়াবেটিস থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়

ডায়াবেটিস থেকে বাঁচার উপায় কি
ডায়াবেটিস থেকে বাঁচার উপায় কি

এছাড়াও ডায়াবেটিস থেকে মুক্তির জন্য আপনি নিচের অভ্যাসগুলো পরিবর্তন করে দৈনন্দিন জীবণ তালিকায় নতুন আপডেট আনতে পারেনঃ

  • ধূমপান না করা: ধূমপান ডায়াবেটিস এবং অন্যান্য অনেক স্বাস্থ্য সমস্যার ঝুঁকি বাড়ায়। ধূমপান ত্যাগ করে ডায়াবেটিস থেকে বাঁচার পারেন।
  • মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণ: উচ্চ মাত্রার চাপ রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। স্ট্রেস পরিচালনা করার জন্য স্বাস্থ্যকর উপায় খুঁজে বের করলে।
  • নিয়মিত মেডিক্যাল চেক-আপ: নিয়মিত মেডিক্যাল চেক-আপ ডায়াবেটিসের ঝুঁকির কারণ চিহ্নিত করতে সাহায্য করে এবং ডায়াবেটিস হওয়ার পূর্বেই আপনি প্রতিরোধ করতে পারবেন।

* পড়তে পারেনঃ সেরা ১০টি ডায়াবেটিস কমানোর উপায়। চিরতরে নিরাময় হবে

সবশেষে,

প্রিয় পাঠক/পাঠিকা! এটা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে, অধিকাংশ মানুষের ক্ষেত্রে পারিবারিক কিংবা বংশ বা জাতিগত সূত্রে ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। তাই তাদের জন্য জীবনধারা পরিবর্তন করার বিষয়ে আরও সতর্ক  হতে হবে এবং নিয়মিত পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ডাক্তারের কাছে যাওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

পরিশেষে, ডায়াবেটিস কত হলে মানুষ মারা যায় এবং এই রোগ থেকে মুক্তির সঠিক পদক্ষেপগুলো কি কি সে বিষয়ে আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন। ধন্যবাদ।।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *